Just another WordPress site

বিস্ময়কর রাম সেতু, যা ৭০০০ বছরের পুরাতন ভূতাত্ত্বিক স্থান

Wonderful Ram setu Adams Bridge

0 1,511

ভারতীয় উপমহাদেশের পর্যটনের জন্য প্রচুর আকর্ষণীয় স্থান রয়েছে। বিশেষত রাম সেতুর মতো হেরিটেজ সাইটগুলির ভূতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য বেশ আকর্ষণীয়। সমগ্র ভারতের বেশ কিছু ভূতাত্ত্বিক সাইট রয়েছে যা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অবস্থিত। এর মধ্যে একটি হল, রাম সেতু। ভারতের জাতীয় ভূতাত্ত্বিক নিদর্শনের মধ্যে রাম সেতু একটি বিস্ময়কর স্থান হিসাবে উল্লখযোগ্য।

ram satu রাম সেতু

সেতুটি ১৫০০ বছর পর্যন্ত চলনযোগ্য ছিল

বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দ্বারা নির্ধারণ করা হয়েছে যে প্রকৃত পক্ষে এই সেতুটি চুনাপাথরের শেল দ্বারা গঠিত এবং কাঠামোটি প্রাকৃতিক নয় এই মানুষের দ্বারা নির্মিত। এই অঞ্চলে আনুমানিক গভীরতা প্রায় ৩ থেকে 30  ফিট পর্যন্ত। আশ্চর্যজনকভাবে, এই সেতুটি বিমান থেকে স্পষ্ট দৃশ্যমান। কথিত আছে যে , অতীতে রাম সেতুর অবস্থান সমুদ্রপৃষ্ঠের জলরাশির ওপরে ছিল এবং সেতুটি ১৫০০ বছর পর্যন্ত চলনযোগ্য ছিল।

৪৮ কিলোমিটার দীর্ঘ এই প্রাচীন রাম সেতু Adams Bridge

৭০০০ বছরের পুরানো বলে প্রমাণিত

রাম সেতু, যা সেতুসামুদ্রম নামেও পরিচিত। ৪৮ কিলোমিটার দীর্ঘ এই প্রাচীন সেতুটি, প্রাকৃতিক না মানব দ্বারা নির্মিত সেটা নিয়ে আজও বিতর্কের শেষ নেই। অনেক সমালোচনা এবং অনেক আকর্ষণীয় বিষয় নিয়ে যা রাম সেতুর সম্পর্কে আমাদের ভাবতে বাধ্য করে। ভারত-শ্রীলঙ্কার মধ্যকার এই পাথুরে লাইনটি, রাম সেতু বা ভগবান শ্রী রামের ব্রিজ নাম পরিচিত। যা প্রায় ৭০০০ বছরের পুরানো বলে প্রমাণিত।

 

হিন্দু পুরাণ অনুসারে রামায়ন গ্রন্থে বর্ণিত, ভগবান শ্রী রাম,  লঙ্কাপতি রাবণকে আক্রমণ করার জন্য তাঁর বানর সৈন্য দ্বারা এই সেতুটি নির্মাণ করেছিলেন। শ্রী রামের স্ত্রী সীতাকে, রাবন অপহরণ করে তাকে কারাবন্দী রেখেছিলো এবং শ্রীলঙ্কায় পৌঁছানোর জন্য এই সেতুটি নির্মাণ করতে হয়েছিল।

রাম সেতুAdams Bridge

 

অ্যাডামস ব্রিজ, নামেও পরিচিত

দক্ষিণ-পূর্ব ভারতের রামেশ্বরম এবং উত্তর-পূর্বে মান্নার দ্বীপের মধ্যে, অগভীর রামসেতুটি বিশ্বের অ্যাডামস ব্রিজ (Adams Bridge) নামেও পরিচিত। এই সেতুটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৪৮ কিলোমিটার এবং সমুদ্রের এই শিলাগুলির গভীরতা মাত্র ৩ থেকে ৩০ফিট পর্যন্ত। ভারত ভূখণ্ড রামেশ্বরম থেকে শ্রীলংকার মন্নার দ্বীপের, এই রাম সেতুটি রামায়ণের সময়কাল যা খ্রিস্টপূর্ব ৫০০০ থেকে আজও বিদ্বমান।

 রাম সেতু

বিরোধিতা করছে-বিশ্ব হিন্দু পরিষদ

ঘটনাচক্রে, বর্তমানে রাম সেতুটি জলের তলায় রয়েছে যার কারণে এখন থেকে জাহাজ চলাচল করতে পারে না। সুতরাং, ভারত থেকে জাহাজগুলি শ্রীলঙ্কায় পৌঁছানোর জন্য আলাদা একটি রাস্তা নিতে হবে। ২০০৫ সালে ভারত সরকার সেতুসামুদ্রম প্রকল্প ঘোষণা করে। এর আওতায় অ্যাডামস ব্রিজের কয়েকটি স্থানে জাহাজ চালানোর উপযোগী করার জন্য রামসেতুর কিছু শিলা ভাঙ্গা প্রয়োজন।

হিন্দু ধর্মাবলীদের বিশ্বাস, এই কাঠামোটি রামায়ণে বর্ণিত সেতু। যা লঙ্কা আরোহণের জন্য ভগবান শ্রী রাম দ্বারা নির্মিত এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদ সংঘঠনের মোতেও একই বিশ্বাস করেন। অতএব এই রাম সেতুতে কোনো রকম হস্তক্ষেপে করা যাবেনা বলে বিরোধিতা করছে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

More posts:-

Manas national park প্রাকৃতিক এবং জীববৈচিত্রে ঐতিহ্যবাহী স্থান

Red Zone in the world-শতবর্ষ ধরে এই স্থানে শুধু মানুষই নয়, প্রাণীদেরও প্রবেশ নিষিদ্ধ!

Leave A Reply

Your email address will not be published.